কুরআন-সুন্নাহ আমার জান্নাতের পথ

এবারের মাহে রমজান পৃথিবীর ইতিহাসে সোনার অক্ষরে লেখা থাকবে। কারণ বিশ্ব ইতিহাসের অংশ হতে চলেছে এবারের রমজান। বিশ্ব মুসলিম সম্প্রদায় হয়তো এটাই মনে মনে চেয়েছিল- একদিন তাদেরও নিজস্ব মানদণ্ড হবে সময়ের। সর্বজনীন বা স্ট্যান্ডার্ড টাইম হিসেবে আমরা ধরে নেই গ্রিনিচমান সময় (গ্রিনিচ মিন টাইম) বা ‘জিএমটি’কে। কিন্তু এবারের রমজান ১২৬ বছরের পুরনো এই আন্তর্জাতিক সময়ের মানদণ্ডকে ভেঙে ফেলতে যাচ্ছে।

অবাক হওয়ারই কথা। তবে এ ক্ষেত্রে রমজানের ভূমিকা মুখ্য নয়। রমজান অত্যন্ত বরকতময় মাস বলেই তাকে বেছে নেওয়া হয়েছে এমন একটি ঐতিহাসিক কাজের জন্য। কাজটা হচ্ছে- ইসলামের পবিত্র নগরী মক্কাকে যেহেতু গোটা মুসলিম জাহান পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের ‘কেবলা’ হিসেবে বরণ করে নিয়েছে, সেই মক্কাই হোক মুসলমানদের সময়েরও মানদণ্ড। তাই সৌদি আরব সরকার চাচ্ছে পবিত্র মক্কাকে গ্রিনিচমান টাইমের বিকল্প স্ট্যান্ডার্ড টাইমের প্রতীক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে। আর সে লক্ষ্যেই পৃথিবীর বৃহত্তম ঘড়িটি বসানো হয়েছে এই মক্কায়। ১৯৮৩ ফুট উঁচুতে এক গগণচুম্বী অট্টালিকায় এবং ঘড়িটি চালু করা হলো মাহে রমজানের শুরুতে। টিক… টিক… টিক…।…

View original post 772 more words

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: