ঈশ! রোজাদারদের জন্য এতকিছু!

ভাই মুসলিম ! আপনার হাতে এটা একটি কাগজের পাতা। অনেকে তুচ্ছ ভেবে গ্রহণ করতে চায় না। কেউ নিলেও গুরুত্ব সহকারে পড়ে না। কিন্তু ভেবে দেখুন তো, ইহা লেখতে, ছাপাতে, জেরক্স করতে কি মূল্যের প্রয়োজন হয়নি ? শ্রমের প্রয়োজন হয় নি? কেউ বলে আমি বড় বড় বই পড়ি, আরবী ভাষায় পড়ি, এই নগণ্য কাগজের টুকরোটিতে আর কতখানিই বা জ্ঞান আছে ! আমার দরকার নেই। কিন্তু বড় বড় বই তথা কুরআন হাদীসের তথ্যগুলো যদি একটি কাগজে লেখা হয় তাহলে কুরআন হাদীস হীন হয়ে যায় কি ? কুরআন কুরআনই থাকে হাদীস হাদীসই থাকে। তাই আসুন, অবহেলা না করে পড়ে দেখুন কি আছে এই সাদা কাগজের বক্ষে।

আল্লাহ তাঁর ইবাদতকারীকে সওয়াব, প্রতিফল, প্রতিদান, অবশ্যই দেন। কিন্তু রোযা পালনকারীকে এত কিছু দেন । এতো অকল্পনীয়। নিম্নে লক্ষ্য করুন :-

(১) প্রত্যেক সৎ কাজের সওয়াব নির্ধারিত সীমিত। কিন্তু রোযার সওয়াব অঢেল অসীমিত। কারণ আল্লাহ স্বয়ং রোযার বদলা দিবেন। নবীজী বলেনঃ ‘‘ আদম সন্তানের সকলনেক কাজ দশ গুণ থেকে সত্তর গুণে বর্ধিত করা হয় রোযা ছাড়া। কারণ রোযা আমার জন্যে আর এর বদলা আমি নিজেই দেব .. ” [ মুসলিম, ১৯৪৫] আল্লাহ নিজে দিবেন। কি আশ্চর্য ! তাহলে কি পরিমাণে দিবেন ! কতখানি দিবেন! তিনিই ভাল জানেন।

(২) আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে যে একটি রোযা রাখে, তার চেহারাকে জাহান্নাম থেকে সত্তর বছর রাস্তা অতিক্রম করলে যতদূর ব্যবধান হয়, ততদূর সরিয়ে দেয়া হয়। [ মুসলিম,১৯৪৮/ নাসাঈ, দারেমী ]

(৩) কেয়ামতের দিনে রোযাদারের জন্য রোযা সুপারিশ করবে, বলবেঃ হে আমার প্রভু ! আমিই তাকে দিনের বেলায় পানাহার এবং যৌন কাজ থেকে দুরে রেখেছিলাম। তাই তার ব্যাপারে আমার সুপারিশ কবূল করো। ফলে তার সুপারিশ গ্রহণ করা হবে। [ আহমদ]

(৪) যে ব্যক্তি আল্লাহর প্রতি ঈমানের সাথে, [ অর্থাৎ আল্লাহই এই রোযাকে ফরয করেছে এই বিশ্বাসের সাথে ] এবং আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে [ পার্থিব বা লোক দেখানো উদ্দেশ্যে নয়] রোযা পালন করবে, আল্লাহ তার বিগত সমস্ত গুনাহকে (ছোট গুনাহ সমূহকে) ক্ষমা করে দিবেন। [ বুখারী এবং মুসলিম ]

(৫) রোযাদারদের জন্য আল্লাহ জান্নাতে একটি বিশেষ দরজা রেখেছেন যে, দরজা দিয়ে কেবল রোযাদারেরা প্রবেশ করবে। যার নাম হচ্ছে রাইয়ান। রোযাদারদের প্রবেশ করা শেষ হলে তা বন্ধ করে দেওয়া হবে। [ বুখারী, নং ১৭৬৩ মুসলিম ]

(৬) রোযাদারের মুখের গ্যাস আল্লাহর নিকট মেশকে আম্বরের চেয়েও অধিক সুগন্ধ। [বুখারী, নং ১৭৭১ মুসলিম]

(৭) যে ব্যক্তি কনো রোযাদারকে ইফতার করায় সে রোযাদারীর সমান নেকী পায়, অথচ ইফতারকারীর নেকী কম হয় না। [ তিরমিযী, ইবনু মাজাহ ]

(৮) রোযার মাসে একটি এমন সম্মানিত রাত্রি আছে যে রাতের ইবাদত ৮৩ বছরের ইবাদতের চেয়েও উত্তম। [ সূরা ক্কাদর ]

এসব ফযীলত এবং মর্যাদার অধিকারী হবে সেই রোযাদার যে, খাঁটি অন্তরে আন্তরীকতার সাথে আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে রোযা রাখবে।

আল্লাহ বলেনঃ ( তাদেরকে এ ছাড়া কোন নির্দেশ করা হয়নি যে, তারা খাঁটি মনে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর ইবাদত করবে ) [ সূরা বাইয়্যিনাহ/৫]

এখন প্রশ্ন হচ্ছে যেই রোযাদার, রোযা করে বটে কিন্তু সে নামায পড়ে না কিংবা কয়েক ওয়াক্ত পড়ে কিংবা মনে মনে বলে রোযা শেষ হলে নামায ছেড়ে দিব। তাহলে এইরকম রোযাদার কি আন্তরিকতার সাথে আল্লাহর দিকে ফিরেছে ? তার সমস্ত গুনাহ ক্ষমা হবে তো ? আল্লাহ কি তার অন্তরের এই অবস্থাকে জানেন না? নামায ছাড়া নিঃসন্দেহে কবীরা (বড়) গুনাহ। রোযা করলাম আর অন্য দিকে কবীরা গুনাহও করলাম। রোযা করলাম অথচ মিথ্যা বলা ছাড়লাম না। রোযা করলাম অথচ গীবত-পরনিন্দা ত্যাগ করলাম না। রোযা করলাম অথচ হারাম অসৎ উপার্জন বর্জন করলাম না। রোযা করলাম অথচ ব্যবসা-বাণিজ্যে ধোকা দেওয়া ছাড়লাম না। রোযা করলাম অথচ সূদের মত বড় পাপের লেনদেন ছাড়লাম না। রোযা করলাম অথচ অফিসের টেবিলে বসে ঘুষ নেওয়া ছাড়লাম না। রোযা থাকলাম অথচ মাল-সম্পদের যাকাত দিলাম না। রোযা করলাম অথচ পিতা মাতার নাফরমানী করতে থাকলাম। রোযা করলাম অথচ রেডিও টেলিভিশনের গান বাজনা শুনতেই থাকলাম। রোযা থাকলাম অথচ টেলিভিশনের পর্দায় নগ্ন ছবি দেখা ছাড়লাম না। কেউ হয়তঃ রোযার সময় দিনের বেলায় দেখলাম না কিন্তু ইফতারীর পরে আবার শুরু করলাম। দিনের বেলায় ধূম পান করলাম না আর ইফতারী করার পরই শুরু করে দিলাম। মানে দিনের বেলায় রোযার সময় আল্লাহকে ভয় করলাম আর পরে ভয় করলাম না। ইহাই কি আল্লাহর দিকে আন্তরিকতার সাথে ফিরে চলার অর্থ ? এসব ত্যাগ না করেই কি আল্লাহর কাছে ক্ষমা ভিক্ষা চাই ? ক্ষমার আশা করি ?

লেখক: আব্দুর রাকীব (মাদানী)

2 Responses

  1. Reblogged this on jumman24.

  2. Alhamdulillah.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: