শবে মিরাজ উদযাপনঃ কিছু সংশয় নিরসন

***শবে মিরাজ উদযাপনঃ কিছু সংশয় নিরসন***

সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর, আল্লাহ ও তাঁর সব মাখলুকের পক্ষ থেকে সালাম বর্ষিত হোক শেষ নবী মুহাম্মাদ (স), তাঁর পরিবার ও তাঁর সাহাবীগনের উপর।

ইসরা ও মিরাজের ঘটনায় কোন সন্দেহ নাই এবং এটি নিঃসন্দেহে আল্লাহর আয়াত (নিদর্শন) গুলোর একটি। মিরাজ একাধারে আল্লাহর রাসুল (স) এর সত্যবাদিতা ও আল্লাহর কাছে তাঁর উচ্চ মর্যাদার প্রমান বহন করে থাকে। পাশাপাশি মিরাজ হলো আল্লাহর মহাপ্রাক্রমশীলতার আরেক উদাহরন এবং আল্লাহ যে সমগ্র মাখলুকের উর্ধ্বে তার জ্বলজ্যান্ত প্রমান। আল্লাহ বলেনঃ

“পরম পবিত্র ও মহিমাময় সত্তা তিনি, যিনি স্বীয় বান্দাকে রাত্রি বেলায় ভ্রমণ করিয়েছিলেন মসজিদে হারাম থেকে মসজিদে আকসা পর্যান্ত-যার চার দিকে আমি পর্যাপ্ত বরকত দান করেছি যাতে আমি তাঁকে কুদরতের কিছু নিদর্শন দেখিয়ে দেই। নিশ্চয়ই তিনি পরম শ্রবণকারী ও দর্শনশীল”
আল ইসরা ১

হাদিস হতে জানা যায় যে আল্লাহর রসুল (স) কে সেই রাতে আল্লাহ জান্নাত পর্যন্ত উত্তীর্ন করেন এবং তাঁর সাথে কথোপকথন করেন। এবং সেই রাতেই আল্লাহর নিকট থেকে দৈনিক পাচ ওয়াক্ত সালাতের হুকুম জারি করা হয়।

প্রথমাবস্থায় আল্লাহ প্রতিদিন পঞ্চাশ ওয়াক্ত সালাতের হুকুম জারি করেন। আমাদের প্রানপ্রিয় রসুল (স) আল্লাহর কাছে ততক্ষন পর্যন্ত কাকুতি মিনতি করতে থাকেন যতক্ষন না এটি কমিয়ে পাচ ওয়াক্ত করা না হয়। এর থেকে বুঝা যায় আমাদের রসুল (স) আমাদের কষ্টের বেপারে কত সচেতন ছিলেন। তখন থেকেই পাচ ওয়াক্ত সালাতের প্রচলন এবং তখন থেকে এই পাচ ওয়াক্ত সালাত কে আল্লাহ পঞ্চাশ ওয়াক্তের সমতূল্য করে দেন। অর্থাৎ আল্লাহ সব ভাল কাজের প্রতিদান দশ গুন করে দেন। সব প্রশংসা সেই মহান আল্লাহর যিনি আমাদের জন্য সবকিছু সহজ করে দিয়েছেন।

মিরাজের সঠিক তারিখ কোন হাদিস থেকে সম্পূর্ন নির্ভুল ভাবে জানা যায় না। এটি রজব মাসে সংঘটিত হয়েছিল নাকি অন্য মাসে তাও নিশ্চিত করে বলার অবকাশ নাই। হাদিস বিশেষজ্ঞদের মধ্যে এ বেপারটি সম্পূর্ন ধোয়াচ্ছন্ন, তাই এ বেপারে কেউ স্পষ্ট কোন রায় দেননি। যদিও বা এই রাতের তারিখটি নির্ভুল ভাবে বের করা যায়, তবুও আল্লাহর পক্ষ থেকে এমন কোন অনুমতি পাওয়া যায় না যা এই রাতটিকে অন্যান্য রাত গুলো থেকে অধিক মর্যাদা দিয়ে পালন করতে হবে বা অত্যধিক হারে ইবাদাতে নিমগ্ন হতে হবে। রসুল (স) ও সাহাবায়ে কেরাম কখনো এই রাত উদযাপন করেছেন বলে কোন প্রকার তথ্যাদি নেই।

যদি এই রাতের সবিশেষ উদযাপন শরীয়া সম্মত বা অনুমোদিত হত তাহলে রসুল (স) কথা বা কাজ দ্বারা একে উতসাহিত করতেন। আর যদি এমনটা হত তাহলে সাহাবা গন যুগ থেকে যুগান্তরে তা চর্চা করতেন এবং কালের প্রবাহে তা আমাদের মাঝেও নির্দেশ হিসেবে পরিগনিত হতো। কারন ইসলাম পালনের বেপারে সাহাবারাই ছিলেন অগ্রগন্য। অথচ তাঁরা তা করেননি।

আমাদের বিশ্বাস রাখতে হবে যে আমাদের রসুল (স) দ্বীনকে অপূর্ন রেখে যাননি, এমনকি তিনি এর মধ্যে কোন কিছু কম বেশি করেন নি। যেহেতু তিনি ও তাঁর সাহাবাদের কেউ এই রাত উদযাপন করেন নি তাই এর সাথে ইসলামের কোন ধরনের সম্পর্ক নেই। আল্লাহ তাআলা ইসলাম কে মানবজাতির জন্য পূর্নাং বিধান হিসেবে দিয়েছেন, এতে কোন কিছু বাকি রাখেননি বা কোন নতুন কিছুর সূচনা করার অবকাশ দেননি। তিনি কুরানে বলেনঃ

“আজ আমি তোমাদের জন্যে তোমাদের দ্বীনকে পূর্নাঙ্গ করে দিলাম, তোমাদের প্রতি আমার অবদান সম্পূর্ণ করে দিলাম এবং ইসলামকে তোমাদের জন্যে দ্বীন হিসেবে পছন্দ করলাম”
মায়েদা ৩

তিনি আরো বলেনঃ
“আপনি কাফেরদেরকে তাদের কৃতকর্মের জন্যে ভীতসন্ত্রস্ত দেখবেন। তাদের কর্মের শাস্তি অবশ্যই তাদের উপর পতিত হবে। আর যারা মুমিন ও সৎকর্মী, তারা জান্নাতের উদ্যানে থাকবে”
শুরা ২১

রসুল (স) বলেনঃ
“যে ব্যক্তি দ্বীনে এমন কিছু শুরু করল যা আমাদের অন্তর্ভুক্ত নয়, তবে তা প্রত্যখ্যাত হবে”. বুখারি ২৬৯৭, মুসলিম ১৭১৮

তিনি আরো বলেনঃ
“সর্বাপেক্ষা উত্তম বানী হল আল্লাহর, সর্বাপেক্ষা উত্তম পথনির্দেশ হল তাঁর রসুলের আর সর্বাপেক্ষা খারাপ কাজ হল নব উদ্ভাবিত বিষয় গুলো (বিদাত); সকল বিদাত ই পথভ্রষ্টতা” .মুসলিম ৮৬৭

এবং
“সকল ভ্রষ্টতা জাহান্নামের দিকে নিয়ে যায়”
আন নাসাঈ ১৪৮৭

তাছাড়া আরেকটি হাদিসে আছেঃ

“যখন কোন বিষয়ে মতপার্থক্যের সম্মুখীন হবে তখন আমার সুন্নাহর অনুসরন করবে। সকল প্রকার নব উদ্ভাবিত জিনিস থেকে দূরে থাকবে, কেননা এগুলোই হচ্ছে বিদাত। সকল বিদাত ই ভ্রষ্টতা আর ভ্রষ্টতা শুধু জাহান্নামের আগুনের অভিমুখী করে”

আহমদ ১২৬, আবু দাউদ ৪৬০৭, তিরমিযি ২৬৭৬, ইবন মাজাহ ৪২, সহিহ আল জামে ২৫৪৬

এটা সকল সন্দেহের উর্ধ্বে যে রসুল (স) , সাহাবা বা সলফে সালেহীনদের সকলেই সব ধরনের বিদাত থেকে মুক্ত ছিলেন ও থাকার পরামর্শ দিতেন। যদি বিদাত ক্ষতিকর না হত তাহলে তাঁরা এরুপ নিষেধ করতেন না। মোদ্দাকথা, বিদাত হল এমন আবিষ্কার যা করার অনুমতি আল্লাহ দেননি।

আল্লাহর শত্রুদের (ইহুদি- খ্রিষ্টান) বৈশিষ্ট্য ছিল তারা তাদের ধর্মে নতুন কিছু ঢুকাত। এভাবে কম বেশি করতে করতে তারা নিজেদের পথ থেকে সম্পূর্ন ভ্রষ্ট হয়ে গেছে। তেমনি ভাবে আজকে এই ব্যাধি মুসলিমদের মাঝেও ঢুকেছে। যে কেউ বিদাত করলো, সে যেন এই অভিযোগ করল যে আল্লাহ ইসলাম কে পূর্ন করে দেন নি এবং এখানে নতুন কিছুর প্রয়োজন আছে যা আল্লাহ করেন নি (নাউযুবিল্লাহ)। এধরনের মানুষের দ্বীন অপূর্ন যারা বিদাতের মত জঘন্য কাজে লিপ্ত এবং আল্লাহর বানীর বিরুদ্ধে কাজে রত।আল্লাহ ও রসুলের উপর যেন এদের আস্থা নেই। বিদাত হল আল্লাহ ও রসুলের স্পষ্ট বিরুদ্ধাচার।

আমি আশা করি উপরে উল্লেখিত দলিল গুলো মিরাজ সঙ্ক্রান্ত ভ্রান্তি থেকে মুসলিম দের দূরে রাখতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি শবে মিরাজ পালন যে একটি বিদাত এ বেপারেও সকলের মনের সন্দেহের অবসান ঘটাবে। শবে মিরাজ পালনের সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই।

আল্লাহ আমাদের সদুপদেশ ও মহান বানী দ্বারা হিদায়াত করেছেন, শরিয়ার আইন উপহার দিয়ে আমাদের ধন্য করেছেন। এর বাইরে ইসলামের বেপারে আমাদের অতিরিক্ত কিছুর দরকার নেই। তাই সকলকে শবে মিরাজ পালনে নিরুতসাহিত করা তথা বিদাত থেকে দূরে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ন একটি কাজ ও দ্বীনী দায়িত্ব।

আমি বলতে চাই, যে ব্যক্তি আল্লাহর পথে চলবে ও তার হিদায়াত গ্রহন করবে, আল্লাহ তাঁর গুনাহ মাফ করে তাকে পবিত্র করবেন। পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি আল্লাহর বিধান ও রসুল (স) এর সুন্নাহর বিরোধিতা করবে আল্লাহ তাকে সেই অভিমুখী ই করবেন যা তার প্রাপ্য। আল্লাহ কারো উপর যুলম করেন না, তিনি সকল কিছুর উপর ক্ষমতাশীল।

মহান আল্লাহ আমাদের প্রিয় রসুল (স) ও তাঁর পরিবার এবং সাহাবীদের উপর করুনা বর্ষন করুন। আমীন

শায়খ বিন বায(রহঃ)
[মাজমু’ ফাতওয়া ওয়া মাক্বালাত মুতানায়িআহ]

আরও বিস্তারিত জানার জন্য নিচের লিঙ্ক গুলো দেখতে পারেন

ভিডিও
রজব ও শাবান মাসের বিদআত
http://www.youtube.com/watch?v=fEPEF2xbfsA SaveFrom.net

মাহে রজবের বিদআত
http://www.youtube.com/watch?v=-IvueQ3Bob8 SaveFrom.net

অডিও
মাহে রজবের বিদআত
http://server1.quraneralo.com/lectures/mrm/8%20Mahe%20Rajober%20Bidat.mp3

রজব ও শাবান মাসের বিদআত
http://server1.quraneralo.com/lectures/mrm/35%20Rajob%20o%20Shaban%20Masher%20Bidat.mp3

ইসরা ও মেরাজ(চৌধুরী আবুল কালাম আজাদ, ইসলাম প্রচার ব্যুরো, রাবওয়াহ, রিয়াদ)
http://www.islamhouse.com/d/files/bn/ih_sounds/single/bn_al_esrayu_wal_miraj.mp3

মুহাম্মাদ সালেহ আল মুনাজ্জিদ(আরবী)
http://www.islamhouse.com/d/files/ar/ih_sounds/single/ar_Mzaya_Rjb.mp3

বিভিন্ন শেইখ দের লিখা কিতাব ও আর্টিকেল
রজব সংক্রান্ত প্রচলিত হাদিসগুলো দুর্বল ও ভিত্তিহীন-সানাউল্লাহ নজির আহমদ
http://www.quraneralo.com/weak-hadiths-of-rajab/

রজব নিয়ে অলীক ভাবনা-লেখক : খালেদ ইবনে আহমদ আল-বাবতীন
অনুবাদক : আব্দুল্লাহ শহীদ আব্দুর রহমান
http://www.islamhouse.com/d/files/bn/ih_articles/bn_rajob_alik.pdf

রজব মাস সম্পর্কে জ্ঞাতব্য-লেখক : ইবরাহীম আল হাদ্দাদী
অনুবাদক : সানাউল্লাহ নজির আহমদ
http://www.islamhouse.com/d/files/bn/ih_articles/bn_tanbihat_rajob.doc

রজব মাসের বেদআত বিষয়ে উপদেশ-অনুবাদক : কাউসার বিন খালিদ
সম্পাদক : আব্দুল্লাহ শহীদ আব্দুর রহমান,মদীনা আল মুনাওয়ারার আমর বিল মারূফ ওয়ান নাহী আনিল মুনকার সংস্থা
http://www.islamhouse.com/d/files/bn/ih_articles/bn_rajob_upodesh.pdf

রজব মাসের বেদআত:শরিয়তের দৃষ্টিভঙ্গি-লেখক : নায়েফ বিন আহমদ আলী আল-হামাদ
অনুবাদক : কাউসার বিন খালিদ
http://www.islamhouse.com/d/files/bn/ih_articles/bn_rajob_bidat.pdf

শরীয়তের মানদণ্ডে রজব মাসের ফজিলত-লেখক : ফায়সাল বিন আলী আল-বাদানী
অনুবাদক : মুহাম্মদ শামসুল হক সিদ্দিক
http://www.islamhouse.com/d/files/bn/ih_articles/bn_fajayel_rajob.pdf

ইসরা ও মি‘রাজের ফলাফল ও আমাদের করণীয়-লেখক : আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া
http://www.islamhouse.com/d/files/bn/ih_articles/single/bn_isra_miraj_folafol_o_koronio.pdf

অনেকেই আছেন বাংলা বিশ্বাস করেন না। তাঁদের জন্য আরবী কিতাব
লাইতাতুল ইসরা, মেরাজ বিষয়ক হাদীসের পুঙ্খানুপুঙ্খু বিশ্লেষণ-মুহাম্মদ নাসিরুদ্দীন আল আলবানী
http://www.islamhouse.com/d/files/ar/ih_books/single/ar_alesraa_wal_mearag.pdf

Celebrating the night of the Isra’ and Mi’raaj-Shaykh ‘Abd al-‘Azeez ibn Baaz (may Allaah have mercy on him).
http://www.islamqa.com/en/ref/60288

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: